অধ্যাপক শবনম জাহানকে অব্যাহতি, নতুন প্রভোস্ট অধ্যাপক মাহবুবা নাসরীন

অনলাইনডেক্স ০২:৩৬, ১১ মার্চ ২০১৯

দীর্ঘ প্রতীক্ষিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় ছাত্র সংসদ (ডাকসু) নির্বাচনে বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলে আগেই ব্যালটে সিল মারার অভিযোগে শিক্ষার্থীদের বিক্ষোভের মুখে হলের প্রভোস্ট অধ্যাপক শবনম জাহানকে অব্যাহতি দেওয়া হয়েছে।

নতুন প্রভোস্ট হিসেবে অধ্যাপক মাহবুবা নাসরীনকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে।
সোমবার সকালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. আখতারুজ্জামান এ তথ্য নিশ্চিত করেন। তিনি বলেন, এ ঘটনায় তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। উদ্ভুত পরিস্থিতিতে করণীয় ঠিক করতে সংশ্লিষ্টদের নিয়ে বৈঠকেও বসেছেন উপাচার্য। সকাল ৯টায় বাংলাদেশ-কুয়েত মৈত্রী হলের সামনে দেখা যায়, আগে থেকে সিল মারা ব্যালট পেপার নিয়ে শিক্ষার্থীরা হলের গেটের সামনে বিক্ষোভ করছেন। এসব সিল মারা ব্যালট পেপার পৌঁছে গেছে শিক্ষার্থীসহ সাংবাদিকদের কাছেও।
শিক্ষার্থীরা জানান, সকাল ৮টায় ভোটাররা ভোট দিতে লাইনে দাঁড়ান। প্রক্টর গিয়ে সেখানে কথা বলে সময় কাটানোর চেষ্টা করেন। পরে শিক্ষার্থীরা জোর করে ঢুকলে সিল মারা ব্যালট উদ্ধার করা হয়।
শিক্ষার্থীরা সাংবাদিকদের কাছে বলেন, ‘রাতে আমরা ২টা পর্যন্ত ভোটকেন্দ্র পাহারা দিয়েছি, যেন আগে থেকে সিল মারা না হয়। কিন্তু ২টার দিকে সমস্ত গেট বন্ধ করে দেওয়া হয় এবং আমাদের সেখানে আর থাকতে দেওয়া হয়নি। এরপর সকালে আমরা খালি ব্যালট পেপার দেখতে চাইলেও তা দেখতে দেওয়া হয়নি। এ সময় হল প্রভোস্ট শবনম জাহান আমাদের বাধা দেয়। এরপর প্রক্টর স্যার এলে তারা অনেক্ষণ সময়ক্ষেপণ করে আমাদের ভোট সুষ্ঠু করার আশ্বাস দেয়। কিন্তু তারা তা না করে জাল ভোটে সহায়তা করে। সকালে ভোটকেন্দ্রের পাশে আমাদের রিডিং রুমে যেখানে প্রবেশ নিষিদ্ধ ছিল, সেখানে দেখি হল প্রভোস্ট ম্যাম বস্তাভর্তি সিল মারা ব্যালট পেপার সরাচ্ছেন বাথরুমের ভেতরে। সেখান থেকে এক বস্তা ব্যালট পেপার আমরা ছিনিয়ে আনি ও ভোট বর্জন করি।’

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ