সর্বশেষ :

আওয়ামী আদর্শিকতার সেবক ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি

এস এম ইস্রাফিল হাওলাদার ০৯:৩২, ৬ নভেম্বর ২০১৯

চলমান শুদ্ধি অভিযানে নিজের স্বার্থ উদ্ধারে ভিন্ন মতাদর্শের নেতায় আওয়ামী লীগে যখন সয়লাব। যখন আওয়ামী লীগে অনুপ্রবেশ করে দলের বিশাল ক্ষতির দিকে টানতে মরিয়া। ঠিক এই সময়ে চিরাচরিত স্বভাবের জানান দিয়ে দলের আদর্শিক মনোভাবে অনড় হয়ে, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুরর হমানের আদর্শ ধারণ ও বহন করে জননেত্রি শেখ হাসিনার আস্থা অর্জন করে আওয়ামীলীগের নিবেদিত প্রাণ হয়ে, অসীম মেধা আর পরিচ্ছন্ন ভাবমূর্তিতে অক্লান্ত পরিশ্রম করে চলছেন কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী কমিটির দপ্তর সম্পাদক,সর্বজন স্বীকৃত কর্মীবান্ধব খ্যাত নেতাবীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি। দিনরাত বিরামহীনভাবে দলের স্বচ্ছতায় কাজ করে যাচ্ছেন গোলাপ।

আওয়ামীলীগ সভাপতির ধানমন্ডির কার্যালয় ঘুরে দেখাগেছে- দলের তৃণমূল থেকে শুরু করে সকল শ্রেণির নেতাকর্মীরা সার্বক্ষণিক ভিড় করছেন প্রিয় নেতার সান্নিধ্য পাওয়ার জন্য। বিভিন্ন জেলা থেকে আসা তৃণমূল নেতাকর্মীরা প্রতিনিয়তই বিভিন্ন সহযোগিতার জন্য ভিড় জমান। কেবল দলের পোর খাওয়া আর ত্যাগি নেতাকর্মীদের নিয়েই সারাক্ষণ নানান কাজে ব্যস্ত থাকেন কেন্দ্রীয় এই সফল দপ্তর সম্পাদক আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি।

তিনি বলেন সর্বকালের শ্রেষ্ঠ বাঙালি জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের সৈনিক আর ত্যাগি এবং খাটি আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীদের জন্য আমার দরজা সব সময় খোলা থাকে।

দলের ভেতরে অনুপ্রবেশকারীদের বিষয়ে জানতে চাইলে আওয়ামীলীগের আদর্শের কান্ডারী ড. আবদুস সোবহান গোলাপ প্রতিবেদককে বলেন, আমার কাছে কোন আমার কাছে কোন অনুপ্রবেশকারী এবং অযোগ্য কোন স্থান নেই সে আমার যত বড়ই স্বজনই হোক না কেন। আমি স্পষ্টই বলতে পারি বঙ্গবন্ধুর আওয়ামীলীগ, শেখ হাসিনার আওয়ামীলীগে আমার জীবন থাকতে অন্তত আমার হাত ধরে কোন অনপ্রবেশকারী দলের ভিতরে ঢুকতে পারেনি আগামিতেও পারবেনা। কেননা আমি বঙ্গবন্ধুর আদর্শে শেখ হাসিনার রাজনীতি করি।
আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় কমিটিরি প্রভাবশালী কর্মীবান্ধব এই নেতা সারক্ষণ দলের তৃণমূল, আদর্শ আর দলের স্বচ্ছতা নিয়েই দিবারাত স্বপ্নে বিভোর থাকেন। শুধু তাইনয়, আওয়ামীলীগের বিভিন্ন পর্যায়ে খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, অক্লান্ত পরিশ্রমকরে দলের সুনাম অক্ষুন্নরেখে দলীয় প্রধানের আস্থাভাজন হয়েছেন। আরসে কারণেই দলের ত্যাগি নেতাকর্মীরা ভালবাসেন তাদের প্রিয়নেতা ড. আবদুস সোবহান গোলাপকে।
একাধিক সূত্রে জানাগেছে, কিছু সুবিধাভুগি ব্যক্তিরা গোলাপের কাছথেকে ব্যক্তি স্বার্থে অনেক সুবিধা নিতে আসেন। যাদের অনেকই অনুপ্রবেশকারীএবংঅযোগ্য মনেকরে কোন কাজ বা সুবিধা করে নাদেওয়ায় ড. আবদুস সোবহান গোলাপের বিরুদ্ধে বিভিন্ন ভুঁইফোর অনলাইন এবং কিছু পত্রপত্রিকায় মিথ্যা ও বানোয়াট তথ্য সরবরাহ করে সংবাদ প্রকাশ করছে। এতে দলের ভাবমূর্তি ক্ষুন্ন করছে বলে জানিয়েছে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয়একাধিক নেতাকর্মী।
ড. আবদুস সোবহান গোলাপের নিজ নির্বাচনীএলাকায় খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, মাদারীপুর-৩, কালকিনি-ডাসার- মাদারীপুর বাসীর কাছে সংসদ সদস্য ও ব্যক্তি গোলাপ একজন মাটি ও মানুষের নেতা, মাদারীপুর-৩ সংসদ এলাকার উনয়নের রূপকার, শিক্ষানুরাগী ও একজন নির্ভিক সমাজসেবক। কালকিনি উপজেলার শান্তির দূত, আড়াইলাখ মানুষের হৃদয়ের স্পন্দন। মাদারীপুর-৩ সংসদীয় এলাকাবাসীর ভালবাসার অপর নাম কেন্দ্রীয় আওয়ামীলীগের দপ্তর সম্পাদক, বীর মুক্তিযোদ্ধা ড. আবদুস সোবহান গোলাপ এমপি।
মাদারীপুর-কালকিনি এলাকাবাসী বলেন- একাদশ জাতীয় সংসদের মাত্র ১০মাসে কালকিনি উপজেলা একটি শান্তিনগরী হিসেবে প্রতিষ্ঠিত হয়েছে এমপি গোলাপের ভালবাসায়। উপজেলার প্রতিটি ইউনিয়নের মানুষ আজ সন্ত্রাসী কর্মকান্ড হতে বিরত রয়েছেন। একে অপরের প্রতি সম্মান দিতে শিখেছেন। এমপি গোলাপ কালকিনিতে সংসদ নির্বাচনের পরপরই মানুষে মানুষে সৌহর্দ্য সম্প্রীতির সাথে শান্তিতে বসবাস করছে।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ