সর্বশেষ :

আগামী ২১ এপ্রিল শবে বরাত

ফিরোজ আহম্মেদ ০২:১৮, ১৭ এপ্রিল ২০১৯

আগামী ২১ এপ্রিল শবে বরাত।   জানিয়েছেন ধর্ম প্রতিমন্ত্রী অ্যাডভোকেট শেখ মোহাম্মদ আবদুল্লাহ। তিনি বলেন, শাবান মাসের চাঁদ দেখা নিয়ে বিভ্রান্তি নেই। মঙ্গলবার ধর্ম মন্ত্রণালয়ের সভাকক্ষে নিজ দপ্তরে এক সংবাদ সম্মেলনে এ ঘোষণা দেন তিনি ।
শাবান মাসের চাঁদ দেখার বিষয়ে বিশিষ্ট ওলামায়ে কেরামদের সমন্বয়ে গঠিত ১১ সদস্য কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে এ ঘোষণা দেন তিনি।

এর আগে ৬ এপ্রিল সন্ধ্যায় জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির বৈঠকের পর ধর্ম প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, (৬ এপ্রিল) দেশের কোথাও শাবান মাসের চাঁদ দেখা যায়নি। এ কারণে ৮ এপ্রিল থেকে শাবান মাস গণনা শুরু হবে এবং ২১ এপ্রিল দিবাগত রাতে পবিত্র শবে বরাত পালিত হবে।
তবে ওই ঘোষণার পর ‘মজলিসে রুইয়াতুল হিলাল’ নামের একটি সংগঠন দাবি করে, ৬ এপ্রিল খাগড়াছড়িতে চাঁদ দেখা গেছে ৬টা ৩৫ মিনিটে, যা স্থানীয় পর্যায়ে অনেকে দেখেছেন। তাদের দাবি, মুন্সীগঞ্জেও সেদিন চাঁদ দেখা গেছে।
সংগঠনটি আরও দাবি করে, চাঁদ দেখার বিষয়টি তারা সংশ্লিষ্ট জেলা প্রশাসন ও ইসলামিক ফাউন্ডেশনকে জানিয়েছিল। কিন্তু তারা কেউ আমলে না নিয়ে শাবান মাস ও শবে বরাতের তারিখ ঘোষণা করে।

মজলিসে রুইয়াতুল হিলালের পক্ষে পরে সংবাদ সম্মেলন করা হলে সরকার ১৩ এপ্রিল জরুরি বৈঠক ডাকে। বৈঠকে ভিন্নমত প্রদানকারীরাও যোগ দেন। আলোচনার পর শাবান মাসের চাঁদ দেখা নিয়ে বিতর্কের অবসান ঘটাতে ১১ সদস্যের সাব-কমিটি গঠন করে করা হয়। কমিটিকে শবে বরাতের আগে ১৭ এপ্রিলের মধ্যে তাদের চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত জানানোর জন্য বলা হয়।

১৬ এপ্রিল সকাল সাড়ে ১০টায় বায়তুল মোকাররম কার্যালয়ে এক সভা হয়। সভায় ইসলামিক ফাউন্ডেশনের মহাপরিচালক উপস্থিত ছিরেন। সভার শুরুতে উপ-কমিটির আহ্বায়ক মুফতি মুহাম্মদ আবদুল মালেক সবাইকে সালাম জানিয়ে সভার কার্যক্রম শুরু করেন। এরপর সভায় উপস্থিতি সদস্যরা দীর্ঘ দেড় ঘণ্টা যাবত সংশ্লিষ্ট বিষয়ের বিভিন্ন দিক নিয়ে শরিয়তের আলোকে পর্যালোচনা করেন।

এরপর উপ-কমিটি আনুমানিক বেলা ১২টার দিকে ইসলামিক ফাউন্ডেশনের সহকারী পরিচালক হাফেজ মো. মোস্তাফিজুর রহমান, সহকারী পরিচালক মো. রেজাউল করিমের মাধ্যমে যারা চাঁদ দেখেছেন মর্মে দাবি করেছেন তাদের সাক্ষ্য প্রদাণের জন্য আহ্বান করেন।

সাক্ষীরা সাক্ষ্য দিতে না এসে অপ্রাসঙ্গিক কিছু শর্ত জুড়ে দেন। বিষয়টি সভায় অবহিত করা হলেও সভার সদস্যরা শর্তগুলো শরিয়তের সাক্ষ্য প্রদাণের নিয়মবহির্ভূত আখ্যা দিয়ে শরিয়ার নিয়ম অনুযায়ী স্বাভাবিকভাবে সাক্ষ্য দিতে পুনরায় কমিটির সদস্য সচিব ও বায়তুল মোকাররম জাতীয় মসজিদের সিনিয়র পেশ ইমাম হাফেজ মাওলানা মুহাম্মদ মিজানুর রহমানকে পাঠান।

সাক্ষীদের উদ্দেশ্যে তিনি বলেন, নির্ধারিত কমিটি আপনাদের বক্তব্য শোনার জন্য অপেক্ষায় আছেন। আপনারা সাক্ষ্য দিতে আসেন। এবারও তারা সাক্ষ্য দিতে আসেনি বরং আগের ন্যায় অপ্রাসঙ্গিক শর্ত জুড়ে দেন, যা ইসলামি শরিয়াবহির্ভূত।

নতুন চাঁদের বিষয়টি সম্পূর্ণ একটি দ্বীনি বিষয়। এ ব্যাপারে ইসলামি শরিয়ার ভিত্তিতে সিদ্ধান্ত গ্রহণ করতে হয়। ২৯ রজবের সন্ধ্যায় যেহেতু জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির কাছে চাঁদ দেখেছেন বলে কেউ সাক্ষ্য দিতে আসেননি তাই ইসলামি শরিয়াহ্ অনুযায়ী পরের দিনকে ৩০ রজব হিসাব করে এর পরের দিন সোমবার ১ শাবান ঘোষণা করা হয়।

পরবর্তীতে ২৯ রজব সন্ধ্যায় কোথাও নতুন চাঁদ দেখা গেছে এমন বক্তব্য সামনে আসার পর তথ্য পর্যালোচনার জন্য গত ১৩ এপ্রিল ধর্ম প্রতিমন্ত্রীর সভাপতিত্বে একটি সভা হয়। সেই সভায় সিদ্ধান্ত হয় যে, নির্ধারিত কমিটি চাঁদ দেখেছেন এমন সাক্ষীদের বক্তব্য শুনে শরিয়তের দৃষ্টিকোণ থেকে যাচাই-বাছাই করে ফয়সালা গ্রহণ করবেন। সেই হিসেবে আজকে সাক্ষীদের সাক্ষ্য গ্রহণ এবং তা যাচাইয়ের জন্য কমিটির সভা হয়। যেহেতু সাক্ষীরা সাব-কমিটির বারবার অনুরোধের পরও সাক্ষ্য দিতে সভায় উপস্থিত হননি বরং সাক্ষ্য দেয়ার জন্য এমন কিছু শর্ত জুড়ে দিয়েছেন যেভাবে সাক্ষ্য গ্রহণের শরিয়তে কোনো ভিত্তি নেই। তাই চাঁদ দেখার কোনো সাক্ষীর সাক্ষ্য না পাওয়ায় আজকের সভা ইসলামি শরিয়াহ্ অনুযায়ী জাতীয় চাঁদ দেখা কমিটির গত ৬ এপ্রিল ঘোষিত সিদ্ধান্ত বহাল রেখেছেন।

অর্থাৎ ১ শাবান গত ৮ এপ্রিল থেকে শুরু হওয়ার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হলো। সেই মোতাবেক আগামী ২১ এপ্রিল দিবাগত রাতে সারাদেশে পবিত্র শবে বরাত।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ