সর্বশেষ :

‘আমি এতটুকু বলতে চাই, শেখ হাসিনার সরকার অমানবিক নয়-ওবায়দুল কাদের

মৃত্যুঞ্জয় মজুমদার ০৪:৩৪, ২৪ মে ২০১৯

ভারতের সাধারণ নির্বাচনে ক্ষমতাসীন বিজেপি’র বিশাল জয়ের পর বাংলাদেশের সঙ্গে তিস্তা চুক্তিসহ অন্যান্য অমীমাংসিত বিষয়গুলো দ্রুত সমাধান হবে বলে আশা প্রকাশ করেছেন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের।
শুক্রবার (২৪ মে) দুপুরে আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনার ধানমন্ডির রাজনৈতিক কার্যালয়ে অনুষ্ঠিত দলের সম্পাদকমণ্ডলীর এক বৈঠক শেষে অনুষ্ঠিত সংবাদ সম্মেলনে তিনি এমন আশা ব্যক্ত করেন।
সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি এবার ঐতিহাসিক বিজয় অর্জন করেছেন। মোদি সরকারের গত আমলে আমাদের সঙ্গে অনেক অমীমাংসিত সমস্যা সমাধান হয়েছে। মোদি সরকারের সাহসিকতা ও বিচক্ষণতার প্রমাণ দু’দেশের সীমান্ত সমস্যার সমাধান। এবার নরেন্দ্র মোদি তার দেশের জনগণের আস্থা আরও বেশি করে পেয়েছেন। আমরা আশা করি, আমাদের সঙ্গে তিস্তা চুক্তিসহ অমীমাংসিত বিষয়গুলোর সমাধানের যে প্রক্রিয়াটা আছে, সেটা আরও দ্রুত হবে।’
সরকার খালেদা জিয়াকে জেলখানায় বিনা চিকিৎসায় মেরে ফেলতে চায়, বিএনপির এমন অভিযোগের জবাবে আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘আমি এতটুকু বলতে চাই, শেখ হাসিনার সরকার অমানবিক নয়। খালেদা জিয়া আইনগত কারণে হয়তো কারাগারে রয়েছেন। কিন্তু তাকে বিনা চিকিৎসায় মেরে ফেলতে হবে, এ ধরনের  অমানবিক ও নিষ্ঠুর কাজ সরকার করবে না।’
ওবায়দুল কাদের বলেন, ‘সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় মুজিব বর্ষ পালন ও আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সফর নিয়ে আলোচনা হয়েছে। ঈদের পরে দলের সাংগঠনিক কার্যক্রম আরও জোরদার করা হবে, সে বিষয়েও আলোচনা হয়েছে।’
তিনি বলেন, মুজিব বর্ষের কর্মসূচি মোটাদাগে পালনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। আর আমাদের জাতীয় সম্মেলন, সারাদেশে তৃণমূল পর্যন্ত কর্মসূচি নেওয়া হয়েছে। এসব বিষয়ে আমাদের দলের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দিক নির্দেশনা দিয়েছেন।’
দলের সম্মেলনকে ঘিরে সুবিধাবাদীরা প্রবেশ করছে কিনা, জানতে চাইলে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক বলেন, ‘এসব সুবিধাবাদীদের অনুপ্রবেশ করতে দেওয়া হবে না। সুযোগসন্ধানীরা চিরদিন এটা করে থাকে। আমাদের দলের সিদ্ধান্ত পরিষ্কার— পরীক্ষিত ত্যাগী নেতাকর্মীদেরকে তৃণমূল থেকে নেতৃত্বে আনা হবে। কোনোখানে কোনও সুযোগ সন্ধানীর স্থান হবে না।’
আওয়ামী লীগের সম্পাদকমণ্ডলীর সভায় উপস্থিত ছিলেন— দলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মাহবুব-উল-আলম হানিফ, আব্দুর রহমান, সাংগঠনিক সম্পাদক আহমদ হোসেন, বিএম মোজাম্মেল হক, আ ফ ম বাহাউদ্দিন নাছিম, এনামুল হক শামীম, দরের আইনবিষয়ক সম্পাদক ও গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম, শিল্প বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সাত্তার, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিষয়ক সম্পাদক আব্দুস সবুর, শিক্ষা বিষয়ক সম্পাদক শামসুন্নাহার চাপা, কৃষি বিষয়ক সম্পাদক ফরিদুন্নাহার লাইলী, বন বিষয়ক সম্পাদক দেলোয়ার হোসেন, উপদফতর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া, ও কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মারুফা আক্তার পপি প্রমুখ।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ