সর্বশেষ :

খেলোয়াড়দের কোনোভাবে উত্তেজিত না  হওয়ার পরামর্শ

নিউজবক্স ডেক্স ১০:৫৩, ২ জুলাই ২০১৯

বিশ্বকাপে আজ গুরুত্বপূর্ণ ম্যাচে ভারতের মুখোমুখি হবে বাংলাদেশ। বার্মিংহামের এজবাস্টনে ম্যাচটি শুরু হবে বাংলাদেশ সময় বিকাল সাড়ে তিনটায়। এই ম্যাচে খেলতে নামার আগে মাশরফি বিন মর্তুজা দলের খেলোয়াড়দের কোনোভাবে উত্তেজিত না  হওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।
২০০৭ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজে হওয়া বিশ্বকাপে ভারতকে ৫ উইকেটে হারিয়েছিল বাংলাদেশ। যার ফলে গ্রুপ পর্ব থেকেই ভারতের বিদায় হয়ে গিয়েছিল। সেই ম্যাচে ম্যাচসেরা খেলোয়াড়ের পুরস্কার পেয়েছিলেন বর্তমান টাইগার অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা।
এ বারের বিশ্বকাপে সেমিফাইনালে ওঠার আশা জিইয়ে রাখতে এই ম্যাচটার অসম্ভব গুরুত্ব সাকিব আল হাসানদের কাছে। মাশরফি বলেছেন, ‘মাথা ঠান্ডা রেখে এই ম্যাচটা খেলা সবচেয়ে জরুরি। আসলে ভারতের সঙ্গে আমাদের লড়াই ঘিরে মারাত্মক একটা আগ্রহ তৈরি হয়েছে। যে কারণে আমাদের দলের ক্রিকেটারদের উত্তেজনা এড়িয়ে চলা খুব কঠিন।’
মাশরাফি আরো বলেছেন, ‘এই সব ম্যাচে শুরু থেকেই স্নায়ুর চাপ থাকবে। বাইরের চাপটাও অসম্ভব। আমাদের নিজেদের এই চাপের বাইরে রাখতে হবে।’
এই ম্যাচ ঘিরে সোশ্যাল মিডিয়ায় সাংঘাতিক উত্তপ্ত একটা পরিমণ্ডল ইতিমধ্যেই সৃষ্টি হয়েছে। যা নিয়ে মাশরফি বলেছেন, ‘আমাদের এখন একটাই কাজ। এই ধরনের উত্তেজনা থেকে দূরে থাকা। সোশ্যাল মিডিয়ায় যা হচ্ছে বা হবে, তা আমাদের ভাল খেলতে সাহায্য করবে না। তাই এ সব নিয়ে যত কম মাথা ঘামানো যায় তত ভাল। সন্দেহ নেই এই ম্যাচটায় দারুণ খেলে জিততে পারলে সেটা একটা বিরাট সাফল্যের ব্যাপার হবে বাংলাদেশের কাছে।’
২০০৭ সালের সেই ম্যাচ নিয়ে মাশরাফি বলেন, ‘সত্যিই সেটা একটা সুখস্মৃতি। সেই বিশ্বকাপে আমাকে দারুণভাবে পথ দেখিয়েছিলেন সুমন ভাই (হাবিবুল বাশারের ডাকনাম)।’
মাশরফি মনে করছেন কোহলিদের বিরুদ্ধে বাংলাদেশের তুরুপের তাস হয়ে উঠতে পারেন পেসার মোস্তাফিজুর রহমান। যিনি অতীতে বারবার ভারতীয় ব্যাটসম্যানদের সমস্যায় ফেলেছেন। মাশরফির কথায়, ‘মোস্তাফিজ যদি নিজের সেরা ছন্দে থাকে এবং ওর কাটারগুলো ঠিকঠাক দিতে পারে, তাহলে সেটা আমাদের জন্য বিরাট সুবিধার ব্যাপার হবে। তাছাড়া আমাদের সবার চেষ্টা থাকবে নিজেদের সেরা ক্রিকেটটা খেলা।’

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ