ট্রাম্প বলেন, আমি রাষ্ট্রদূতকে চিনি না

অনলাইনডেক্স ১২:২৪, ১০ জুলাই ২০১৯

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প ওয়াশিংটনে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূতকে ‘স্টুপিড গাই’ বলেছেন। ট্রাম্প বলেন, ‘আমি রাষ্ট্রদূতকে চিনি না। কিন্তু সে একজন ‘দাম্ভিক বোকার’ এর মতো কথা বলেছে।’ টুইটারে ধারাবাহিক কয়েকটি লেখায় তিনি এ মন্তব্য করেন।
রবিবার ট্যাবলয়েড পত্রিকায় ডেইলি মেইলে ওয়াশিংটনে যুক্তরাজ্যের রাষ্ট্রদূতের একটি কূটনৈতিক মেইল ফাঁস হয়। রাষ্ট্রদূত মেইলে ট্রাম্প প্রশাসনকে ‘অদক্ষ’ বলে অভিহিত করে। এ ঘটনা দুই দেশের মধ্যে কূটনৈতিক উত্তেজনা তৈরি করে।
প্রধানমন্ত্রী থেরাসা মে ওয়াশিংটনে নিযুক্ত যুক্তরাজ্যে রাষ্ট্রদূতের পক্ষে রয়েছে। যদিও রাষ্ট্রদূতের মন্তব্যের সঙ্গে তিনি একমত না বলে তার মুখপাত্র জানিয়েছেন।
যুক্তরাজ্যের অবস্থান ব্যাখ্যা করতে প্রধানমন্ত্রী থেরেসা মের মুখপাত্র জানান, রাষ্ট্রদূত স্যার কিম ডেরকের ওপর প্রধানমন্ত্রীর সম্পূর্ণ আস্থা আছে। কিন্তু ফাঁস হওয়া মেইলে রাষ্ট্রদূতের বিবৃতির সঙ্গে তিনি একমত নন। মেইল ফাঁস হওয়া ‘সম্পূর্ণ অগ্রহণযোগ্য’।
মুখপাত্র আরও বলেন,‘রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব হচ্ছে সঠিক ও অকপট মতামত প্রকাশ করা। কিন্তু উপরের বিবৃতির সাথে প্রধানমন্ত্রী সম্মত না।’ যুক্তরাজ্যের সরকার ফাঁস হওয়া মেইলের তদন্ত শুরু করেছে বলেও তিনি জানান।
যুক্তরাজ্যের বাণিজ্যমন্ত্রী লিয়াম ফক্স বিবিসিকে বলেন,‘কূটনৈতিক মেইল ফাঁস হওয়া অপেশাদারিত্ব,অনৈতিক ও দেশাত্মবোধশূন্য কাজ। যুক্তরাষ্ট্রের সাথে বিদ্বেষপূর্ণ সম্পর্ক সৃষ্টির উদ্দেশ্যে মেইল ফাঁস হওয়ার ঘটনা কেউ ঘটিয়েছে।’ অভ্যন্তরীণ শক্তি সম্পূর্ণ শক্তির মাধ্যমে অপরাধীকে শনাক্তের আশা করেন।
ব্রিটিশ রাষ্ট্রদূত তার মেইলে লেখেন,‘ট্রাম্প প্রশাসন স্বাভাবিক হবে এমনটা আমরা বিশ্বাস করি না। তার (ট্রাম্প) প্রশাসন সামান্য অকার্যকর,সামান্য বিভাজিত, কূটনৈতিকভাবে সামান্য অনভিজ্ঞ।’ তিনি ট্রাম্পকে ‘অযোগ্য’ও বলেছেন।
অতীতেও হোয়াইট হাউজের অন্তর্দ্বন্দ্ব বিষয়ে অভিযোগ হয়েছিল। কিন্তু ডোনাল্ড ট্রাম্প এ অভিযোগের সতত্য নাকচ করে দিয়েছিলেন।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ