সর্বশেষ :

ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন-নিপীড়নের ঘটনায় দেশজুড়ে বইছে প্রতিবাদের ঝড়

অনলাইন ডেস্ক ০২:৩২, ৯ অক্টোবর ২০২০

ধর্ষণ ও নারী নির্যাতন-নিপীড়নের ঘটনায় দেশজুড়ে বইছে প্রতিবাদের ঝড়। ব্যর্থতার অভিযোগ উঠছে সরকার এবং সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের ওপর। দেশের আনাচে-কানাচে যেভাবে ছাত্রলীগ নামধারী সন্ত্রাসীরা সাধারণ মানুষের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়ছে, তাতে সাধারণ মানুষের জীবন অতিষ্ঠ হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ ছাত্রলীগ নামধারীদের ধর্ষণ ও নারী নির্যাতনের মতো কর্মকাণ্ড দেশবাসীকে আতঙ্কিত করে তুলেছে। শহর থেকে গ্রামবাংলা সর্বত্র মানুষ নিরাপত্তাহীন হয়ে উঠেছে। ছাত্রলীগের একের পর এক লাগামহীন ধর্ষণে বিস্ফোরণমুখী হয়ে উঠেছে জনগণ। ক্রীড়াঙ্গনও বাদ থাকেনি ছাত্রলীগ নামধারী এসব ধর্ষক ও নারী নির্যাতনকারীর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াতে। তারাও সাধারণ মানুষকে জেগে ওঠার আহ্বান জানিয়েছেন।
ধর্ষকের কোনো পরিচয় নেই
ফেসবুকে দেওয়া এক পোস্টে মাশরাফি বলেন, ‘আপনার মেয়ে যখন আপনার কোলে বসে থাকে, তখন আপনার সেই অনুভূতি হয় না। যখন আপনার বোন আপনার পাশের রুমে থাকে, তখনো সেই অনুভূতি আসে না। আপনার স্ত্রীকে নিয়ে যখন আপনি ঘুরতে বেরোন, তখন তার দিকে বাঁকাভাবে তাকালে আপনার খারাপ লাগে। কিন্তু অন্যকে দেখার ক্ষেত্রে কী আমার, আপনার অনুভূতি একই রকম আছে? তা না হলে বুঝে নিতে হবে, সমস্যা অনেকের মগজেই। হয়তো পরিবেশ-পরিস্থিতির কারণে সবারটা প্রকাশ পায় না। আসুন মানসিকতা পরিবর্তন করি। নারীকে মাথা উঁচু করে বাঁচতে দিই। আর ধর্ষক কোনো পরিচয় বহন করে না। সে কুৎসিত, হয়তো চেহারায় নয়, মানসিকতায়।’
আমরা চুপ থাকতে পারি না
জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের অফিসিয়াল পেইজ থেকে দেওয়া এক পোস্টে মুশফিক দেশকে জেগে ওঠার আহ্বান জানান।
মুশফিক বলেন, ‘আমরা আর চুপ থাকতে পারছি না। ধর্ষণ বা কোনো প্রকার যৌন হয়রানি কখনোই সহ্য করা যায় না, সমাজে এর কোনো স্থান নেই। জেগে ওঠো বাংলাদেশ। ধর্ষণকে না বলুন। না মানে না।’
ধর্ষণমুক্ত বাংলাদেশ চাই
এদিকে দেশব্যাপী ধর্ষকদের বিরুদ্ধে চলমান আন্দোলনে শামিল হয়েছেন জাতীয় দলের তারকা পেসার রুবেল হোসেন। অফিসিয়াল পেইজ থেকে দেওয়া এক ফেসবুক পোস্টে রুবেল ধর্ষকদের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান প্রকাশ করেছেন।
রুবেল বলেন, ‘কিছু মানুষরুপী পশুদের কী দুর্ভাগ্য, নারীর পেটে জন্ম নিয়েও নারীকে সম্মান করতে শিখল না। মা-বোনেরা, তোমরা সাবধানে থেকো। এই শহরে মানুষ নামের কিছু পশু আছে। কী লিখব ভাষা হারিয়ে ফেলেছি। আমরা ধর্ষণমুক্ত বাংলাদেশ চাই।’
সবাই মিলে রুখে দাঁড়াই
জাতীয় দলের গোলকিপার আশরাফুল ইসলাম রানা ফেসবুকে লিখেছেন, ‘দেশে উদ্বেগজনক হারে বাড়ছে নারী নির্যাতন ও সহিংসতার হার। প্রতিদিনই ঘটছে ধর্ষণ ও নির্যাতনের ঘটনা। সবার মতো আমিও এ নিয়ে শঙ্কিত। নারী ও শিশু নির্যাতনের মতো ঘৃণ্য অপরাধের বিরুদ্ধে এখনই সময় রুখে দাঁড়ানোর। সমাজের সর্বস্তরের মানুষের ঐক্যবদ্ধ প্রচেষ্টার মাধ্যমেই এমন ঘৃণিত অপরাধ দমন করা সম্ভব। আসুন সবাই মিলে রুখে দাঁড়াই, নারী ও শিশুর নিরাপত্তা সুনিশ্চিত করি।’
এখনই রুখে দাঁড়ানো উচিত
জাতীয় দলের মিডফিল্ডার ইমন মাহমুদ বাবু লিখেছেন, ‘সমাজে এক শ্রেণির বর্বরোচিত মানুষ বিরাজ করছে, যারা ধর্ম-বর্ণ-নির্বিশেষে শিশু ও নারীদের প্রতি প্রতিনিয়তই জঘন্য অত্যাচার করছে, তা দেখে আমি আর চুপ থাকতে পারি না।
আমি এসব ঘৃণিত ও অমানবিক নির্যাতনের বিরুদ্ধে অবস্থান করছি।
এই দুঃসময়ে সমাজের সর্বস্তরের মানুষের উচিত ঐক্যবদ্ধ হয়ে এই নৈতিক অবক্ষয়, ঘৃণিত অপরাধের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো। আসুন সবাই মিলে নারী ও শিশুদের নিরাপত্তা নিশ্চিত করি।’

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ