সর্বশেষ :

নওগাঁ মহাদেবপুরের সদর রাস্তায় জলাবদ্ধতা, দেখার কেউ আছেন কি??

রবিউল ইসলাম, মহাদেবপুর- নওগাঁ ১০:১০, ২ অক্টোবর ২০১৯

নওগাঁর মহাদেবপুর উপজেলা সদরের হাটবাজার ও পাড়া-মহল্লার সড়কগুলো দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার না হওয়ায় বেহাল হয়ে পড়েছে। এদিকে সামান্য বৃষ্টিতেই উপজেলা সদরের প্রধান সড়কসহ বিভিন্ন এলাকায় হচ্ছে জলাবদ্ধতা। পয়ঃনিষ্কাশন নালা থেকে আবর্জনা উঠে আসছে সড়কে। এতে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে স্থানীয় বাসিন্দাদের।

মহাদেবপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদ সূত্রে জানা যায়, উপজেলা সদরের হাট-বাজার ও পাড়া-মহল্লাগুলোর বেশিরভাগ সদর ইউনিয়নের অন্তর্ভুক্ত। লোকসংখ্যা প্রায় ৫০ হাজার। পৌরসভা না হলেও মহাদেবপুর সদর শহর এলাকার আয়তন ২০ বর্গ কিলোমিটার। কার্পেটিং রাস্তা ৪৬ কিলোমিটার এবং এইচবিবি সড়ক রয়েছে ১৪ কিলোমিটার। পানি নিষ্কাশনের জন্য পাকা নালা রয়েছে ৩৪ কিলোমিটার এবং কাচা নালা রয়েছে ১২ কিলোমিটার। এসব নালা দিয়ে উপজেলা সদর হাটবাজার ও পাড়া-মহল্লার পানি গিয়ে পড়ছে শহরের মাঝ দিয়ে বয়ে যাওয়া আত্রাই নদে।
উপজেলা সদরের কয়েকজন বাসিন্দার সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পর্যাপ্ত রাস্তা ও নালা থাকলেও দীর্ঘদিন ধরে সেগুলো মেরামত করা হচ্ছে না। ফলে রাস্তাগুলোর ইট-খোয়া উঠে বড় গর্তের তৈরি হয়েছে। পয়ঃনিষ্কাশন নালা দীর্ঘদিন মেরামত ও নালাগুলো ঠিকমতো পরিষ্কার না করায় ময়লা-আবর্জনা জমে রয়েছে। এতে বৃষ্টি হলে ঠিকমতো পানি নিষ্কাশন হচ্ছে না। ফলে জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হচ্ছে। এক ঘন্টার ভারী বৃষ্টিপাত হলে কোনো কোনো এলাকায় তিন-থেকে চার ঘন্টা পর্যন্ত রাস্তাঘাটে পানি জমে থাকে। এতে বাসিন্দাদের চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। পাশাপাশি জলাবদ্ধ ও খানাখন্দে ভরা রাস্তায় চলতে গিয়ে পথচারী, যাত্রী ও চালকেরা চরম দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন।

সম্প্রতি উপজেলার বিভিন্ন এলাকা সরেজমিন দেখা যায়, উপজেলা সদরের প্রধান সড়কের আখেড়া এলাকা থেকে হাসাপাতাল মোড় পর্যন্ত  প্রায় তিন কিলোমিটার রাস্তা খানাখন্দ ভরা। রাস্তার এসব খানাখন্দে বৃষ্টির পানি জমে কাদাপানি একাকার হয়ে রয়েছে। এছাড়া উপজেলা সদরের মাছ চত্বর মোড় থেকে বেইলি ব্রিজ সড়ক, হাসাপাতাল থেকে ঘোষপাড়া সড়ক ও কাপড়পট্টি সড়কের ইট-খোয়া উঠে জায়গায় ছোটবড় গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। এসব গর্তে বৃষ্টির পানি জমে আছে। আর এসকল সড়ক দিয়ে যাওয়ার সময় পথচারীদের গায়ে পানি ছিটকে পড়ছে। এছাড়া উপজেলা সদরের কাচারীপাড়া, কলেজপাড়া, কুঞ্জবন, ঘোষপাড়া ও লিচুবাগান এলাকার বেশ কিছু সড়কে কাদা, পানি ও ময়লা-আবর্জনা জমে রয়েছে। যা মাড়িয়ে চলাচল করছেন স্থানীয় বাসিন্দারা। উপজেলা সদর বাজারের মাছ চত্বর এলাকার ওষুধের দোকানদার শাহিন মাহমুদ বলেন, মাছ চত্বর থেকে ঘোষপাড়া মোড় পর্যন্ত দুই লেন সড়কের এক পাশে পুরো বর্ষা মৌসুমে পানি জমে থাকে। এছাড়া সড়কের পাশের নালাটিও দীর্ঘদিন ধরে সংস্কার ও নিয়মিত পরিষ্কার করা হচ্ছে না। ফলে নালার ময়লা-আবর্জনা উপচে সড়কে গিয়ে পড়ে। এই স্থানটি মশা ও জীবানুর অভয়ারণ্য।

গত বছর বর্ষা মৌসুমে স্থানীয় বাসিন্দারা এই সড়ক সংস্কারের দাবিতে রাস্তার ধানের চারাও রোপন করেছিল। তারপরেও রাস্তাটি সংস্কার করা হয়নি।ঘোষপাড়া এলাকার বাসিন্দা কলেজ ছাত্রী সাবিনা ইয়াসমিন বলেন, তাঁদের পাড়া থেকে প্রধান সড়কে আসার রাস্তাটি খানাখন্দে ভরা। একটু বৃষ্টি হলেই পানি কাদায় একাকার হয়ে যায়। অনেক কষ্টে এই রাস্তা দিয়ে চলাচল করতে হয়। মহাদেবপুর সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মুহাম্মদ মাহবুবুর রহমান ধলু বলেন, মহাদেবপুর সদর ইউনিয়নের মধ্যে শতাধিক কলকারখানা রয়েছে।

নওগাঁর নজিপুর ও ধামইরহাট পৌরসভার চেয়েও এখানকার শহর এলাকা বড়। অথচ এটি আজও পৌরসভা হিসেবে ঘোষণা করা হয়নি। এখানকার শহর এলাকাটি অনেক বড় হওয়ায় একটি ইউনিয়ন পরিষদের বাজেট দিয়ে এখানকার বাসিন্দাদের কাঙ্খিত উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। এজন্য দীর্ঘদিন ধরে এখানকার রাস্তাঘাট ও নালাগুলোর বেহাল হয়ে রয়েছে। উপজেলা পরিষদ এবং উপজেলা প্রশাসন থেকে সহায়তা না পেলে কাঙ্খিত উন্নয়ন করা সম্ভব নয়। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, মহাদেবপুর উপজেলা সদর হাট-বাজারের রাস্তাঘাট ও জলাবদ্ধতার সমস্যা উন্নয়ন সভায় একাধিকবার আলোচিত হয়েছে। ধারাবাহিকভাবে বিভিন্ন প্রকল্প গ্রহণের মাধ্যমে এসব সমস্যার সমাধান করাহবে।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ