নির্বাচন পরবর্তী সহিংস তান্ডবে ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ অফিস সহ গাড়ী ভাংচুর করলো বিদ্রোহী প্রার্থী

রাজু আহম্মদ ০৫:২৫, ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০

নির্বাচন পরবর্তী সহিংস তান্ডবে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের আওতাধীন ৫নং ওয়ার্ডে আ’লীগ সমর্থিত প্রার্থী (ঠেলাগাড়ি প্রতিক) আব্দুর রউফ নান্নুর পক্ষে নির্বাচনীয় প্রচার প্রচারণা করায় প্রতিপক্ষ (বিদ্রোহী প্রার্থী) পল্লবী থানা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক জুয়েল রানার সমর্থকরা খলিলুর রহমান খলিলের দলীয় কার্যালয়, বাসা ও গাড়ী ভাঙ্গচুরের অভিযোগ উঠেছে।

গত শনিবার ১’ফেব্রুয়ারী ঢাকার ২ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন অনিষ্ঠিত হয়।।  উত্তর সিটির  ৫নং ওয়ার্ডে আওয়ামীলীগের সমর্থিত প্রার্থী (ঠেলাগাড়ি) বিজয়ী ঘোষণা হলে  ফল প্রকাশের পর জুয়েল রানার সমর্থকরা ক্ষিপ্ত হয়ে ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক খলিলুর রহমান খলিলের উপর অতর্কিত হামলা চালায়। পরদিন রবিবার আবারও তার কার্যালয়ে ভাঙ্গচুর করে রেহাই পায়নি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ছবিও।

প্রাপ্ত অভিযোগ জানাযায়, শনিবার ১’ফেব্রুয়ারি ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনের ভোট গ্রহণ শেষে প্রাপ্ত ফলাফলে ৫নং ওয়ার্ড থেকে পুনরায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছেন আব্দুর রউফ নান্নু।

আওয়ামীলীগের সমর্থন না পেয়ে (বিদ্রোহী) প্রার্থী হয়ে ৫নং ওয়ার্ডে নির্বাচনে লড়ে বিপুল ভোটের ব্যবধানে পরাজিত হলে জুয়েল রানার লোকজন রাত ৮টার পর থেকেই বাউনিয়াবাধ এলাকায় বিজয়ী সমর্থকদের ধাওয়া করে। পরে দুগ্রুপে ধাওয়া পাল্টা হয়। খবর পেয়ে পল্লবী থানা পুলিশ আশার আগেই খলিলুর রহমান খলিল এর দলীয় কার্যালয়, বাসভবন, ও একটি মাইক্রোবাস গাড়ী ভাঙ্গচুর করে।
ঘটনার পর সাংবাদিকদের খলিলের স্ত্রী বলেন, নির্বাচনে পরাজিত হয়ে আমাদের উপর জুয়েল বাহিনীর সন্ত্রাসীরা হামলা চালায়। নারীদের গায়ে হাত তুলেছে স্বামীর গাড়ী ও দলীয় নির্বাচনী অফিস ভাঙ্গচুর করে।

এবিষয়ে জানতে জুয়েল রানার মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তার মোবাইল ফোন বন্ধ পাওয়া যায়।

এবিষয়ে খলিল বলেন, আমি মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশে কাজ করি। দলের সমর্থনে ঠেলাগাড়ীর পক্ষে কাজ করেছি ও জয় হয়েছে। তাই সে আ’লীগ সমর্থকদের মেরে ফেলার জন্য জুয়েল তার নিজ অফিসের ছাদে নির্বাচনের আগের সারা রাত ধরে বোমা বানিয়েছে।

তিনি আরও বলেন, নির্বাচনের ৬/৭দিন আগেও শান্ত নামের এক আ’লীগ কর্মীকে কুপিয়ে আহত করে। এবিষয়ে এখন পর্যন্ত পল্লবী থানায় মামলা হয়নি। এখন আমার উপর হামলা, অফিস, বাড়ী, গাড়ী সবই শেষ আমার থানা পুলিশ এখন পর্যন্ত জুয়েল রানাকে গ্রেফতার করছেনা মামলাও নিচ্ছেনা।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ