ফুড ফ্লেভারের আড়ালে শাড়ি থ্রিপিস কেমিক্যাল আমদানি-ট্রাকসহ মালামাল জব্দ

নিউজবক্সবিডি ০৬:৫৯, ২৬ এপ্রিল ২০১৯

ভারত থেকে ফুড ফ্লেভার আমদানির আড়ালে শাড়ি, থ্রিপিস ও কেমিক্যাল আমদানি করার অপরাধে ট্রাকসহ মালামাল জব্দ করেছে কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। এ সময় পণ্যবোঝাই ট্রাকসহ কাগজপত্র জব্দ করা হয়েছে।
বেনাপোল বন্দর থেকে জব্দকৃত পণ্য চালানটি বুধবার দুপুরে বেনাপোল কাস্টমস হাউসে পরীক্ষা করা হয়েছে। পণ্য চালানটির আমদানিকারক ঢাকার রেড গ্রিন ইন্টারন্যাশনাল।
পণ্য চালানের আমদানিকারক প্রতিষ্ঠান গত ২ এপ্রিল পণ্যটি আমদানি করার জন্য একটি এলসি খোলেন। পণ্য চালানের প্যাকিং লিস্টে আমদানি করা হয় ২৫ কার্টনে মাত্র ৫০০ কেজি ফুড ফ্লেভার। কিন্তু পণ্য চালানটি জব্দ করার পর ওই ট্রাকটি থেকে ২০০ কেজি কেমিক্যালসহ বিপুল পরিমাণ শাড়ি ও থ্রিপিস পাওয়া যায়।
বেনাপোল কাস্টমস হাউসের ইনভেস্টিগেশন রিসার্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট গ্রুপের একটি প্রতিনিধি দল জব্দকৃত মালামাল পরীক্ষা করেছেন।  রিপোর্টে পণ্য চালানটির মালামাল ঘোষণার আড়ালে এসব পণ্য পাওয়া গেছে। যা থেকে সরকারের কয়েক লাখ টাকার রাজস্ব ফাঁকি হচ্ছিল বলে জানায় কাস্টমস কর্তৃপক্ষ। পণ্য চালানটিতে আমদানিকৃত পণ্যের ঘোষণায় ছিল ফুড ফ্লেভার।
বেনাপোল কাস্টমস হাউসের উপ-কমিশনার মোহাম্মদ জাকির হোসেন বলেন, একজন আমদানিকারক ভারত থেকে ঘোষণার আড়ালে একটি পণ্য চালান বেনাপোল বন্দরে নিয়ে আসছে- এমন সংবাদে কাস্টমস হাউসের সহকারী রাজস্ব কর্মকর্তা রাশেদুর রহমান পণ্যবোঝাই একটি কাভার্ডভ্যান জব্দ করেন। পরে ট্রাকটি কাস্টমস হাউসে নিয়ে আসা হয়। মালামাল পরীক্ষা করা হয়। পরীক্ষায় ঘোষণার আড়ালে অন্য পণ্য পাওয়া গেছে। পণ্য চালানটির সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট ছিল মেসার্স আহাদ এন্টারপ্রাইজ।
বেনাপোল কাস্টমস হাউসের ইনভেস্টিগেশন রিসার্স অ্যান্ড ম্যানেজমেন্ট গ্রুপের সহকারী কমিশনার মো. আকরাম হোসেনকে তদন্ত টিমের প্রধান করা হয়েছে। বৃহস্পতিবার সকাল থেকে তদন্ত কমিটি কাজ শুরু করেছে। তদন্ত রিপোর্ট আসার পর প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।
এ ব্যাপারে সিঅ্যান্ডএফ এজেন্ট মালিক মেসার্স আহাদ এন্টার প্রাইজের কর্তৃপক্ষ জানায়, ওই গাড়িতে আমদানিকারকের ৫০০ কেজি ফুড ফ্লেভার ছিল। অন্য সব মালের কোনো তথ্য তাদের জানা নেই।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ