বিদ্যালয়ের মাঠের ভেতর দিয়ে পাকা সড়ক, দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে ২৫০ শিশু

নিউজবক্সবিডি ১২:২৩, ২০ এপ্রিল ২০১৯

রাজবাড়ীর একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের মাঠের ভেতর দিয়ে নির্মিত পাকা সড়কের কারণে দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে রয়েছে ২৫০ শিশু শিক্ষার্থী। গোয়ালন্দের ১৭নং হাউলি কেউটিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের এসব শিক্ষার্থীকে প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়ে সড়ক পার হতে হচ্ছে। সড়ক পার হয়ে যেতে হচ্ছে এক ভবন থেকে অন্য ভবনে।
২০০৩-০৪ অর্থবছরে নির্মিত সড়কটির দৈর্ঘ্য ১২ কিলোমিটার। এটি গোয়ালন্দের কাটাখালী থেকে রাজবাড়ী সদরের কুঠি পাঁচুরিয়া হয়ে রাজবাড়ী-কুষ্টিয়া আঞ্চলিক মহাসড়কে সংযুক্ত হয়েছে। সড়কটি হাউলি কেউটিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় প্রাঙ্গণের ঠিক মাঝখান দিয়ে চলে গেছে। এতে সড়কের দুপাশে পড়েছে বিদ্যালয়ের দুটি ভবন। এ অবস্থায় প্রতিনিয়ত সড়ক পার হয়ে শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের এক ভবন থেকে অন্য ভবনে যেতে হচ্ছে। সড়কের ওপরই আয়োজন করা হচ্ছে শিশুদের প্রাত্যহিক সমাবেশ। খেলাধুলার সময়ও শিশুরা সড়কে উঠে যাচ্ছে।
স্থানীয়রা জানান, এ সড়কে এখন ব্যাটারিচালিত অটোরিকশা, নসিমন, করিমনসহ বিভিন্ন ধরনের যানবাহন চলাচল করে। তাছাড়া ইদানীং বালিবাহী ট্রাকও চলাচল করছে। ফলে শিশুরা সড়কে অবস্থানকালে অসাবধানতাবশত মারাত্মক দুর্ঘটনা ঘটতে পারে।
বিদ্যালয়ের ভারপ্রাপ্ত প্রধান শিক্ষক গোলাম ইয়াছিন বলেন, অন্য জায়গা না থাকায় সড়কের ওপরই বিদ্যালয়ের প্রাত্যহিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। এ সময় যানবাহন এলে সরে গিয়ে সেগুলোকে  জায়গা করে দিতে হয়। তাছাড়া টিফিন বা ছুটির সময় ওই সড়কের ওপরই শিশুরা খেলাধুলা করে। ২৫০ জন শিশুর সবাইকে তখন দেখে রাখা সম্ভব হয় না। ফলে দুর্ঘটনার ঝুঁকি থেকেই যায়।
হাউলি কেউটিল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সভাপতি আজু শিকদার বলেন, প্রতিদিন এ সড়কে চলাচলকারী যানবাহনের সংখ্যা বাড়ছে। বিদ্যালয়ের মাঠের ভেতর দিয়ে এভাবে সড়ক নির্মাণ করায় মারাত্মক ঝুঁকি সৃষ্টি হয়েছে। দ্রুত বিকল্প সড়ক নির্মাণ ও শিশুদের নিরাপত্তায় বিদ্যালয়ের সীমানাপ্রাচীর নির্মাণ প্রয়োজন।
একই আশঙ্কা ও দাবির কথা জানান একাধিক অভিভাবক। বর্তমানে এখানে অধ্যয়নরত সব শিশুই দুর্ঘটনার ঝুঁকিতে রয়েছে।
এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আব্দুল মালেক বলেন, ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষককে জমির জন্য স্থানীয়ভাবে উদ্যোগ নিতে বলেছি। তাছাড়া বিদ্যালয়ের পিয়ন দিয়ে শিশুদের সড়ক পারাপার করার জন্য বলেছি। মূলত এ সংকট নিরসনে সবার সমন্বিত উদ্যোগ প্রয়োজন।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ