বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু পঞ্চম বারের মতো সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন

অনলাইনডেক্স ১১:৩১, ১০ এপ্রিল ২০১৯

ইসরায়েলের পার্লামেন্টের নেসেট’র আসন সংখ্যা ১২০টি। কিন্তু এ পর্যন্ত কোনও দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারেনি নির্বাচনে। দেশটিতে সব সময় জোট সরকার গঠিত হয়েছে।
মঙ্গলবারের নির্বাচনেও কোনও দল একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পাওয়ায় ডানপন্থীদের নিয়ে নেতানিয়াহুর জোট সরকার গঠনের পথ সুগম হয়েছে। ডানপন্থীরা সব মিলিয়ে ৬৫টি আসনে জয় পেয়েছে। ফলে নির্বাচনে ডানপন্থীদের জয় হয়েছে বলে ধরে নেওয়া হচ্ছে।
ইসরায়েলের প্রধানমন্ত্রী বেনিয়ামিন নেতানিয়াহু রেকর্ড সংখ্যক পঞ্চম বারের মতো ইসরায়েলে সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন। মঙ্গলবার দেশটির সাধারণ নির্বাচনে একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা না পেলেও ডানপন্থী জোট সরকার গঠন করতে যাচ্ছেন তিনি। বুধবার ৯৬ শতাংশ ভোট গণনা শেষে নেতানিয়াহুর লিকুড পার্টি পেয়েছে ৩৭টি আসন। তার প্রতিদ্বন্দ্বি মধ্যপন্থী নীল ও সাদা জোট পেয়েছে ৩৬টি আসন।
৬৯ বছরের নেতানিয়াহু এবার সরকার গঠন করলে ইসরায়েলের ইতিহাসে সবচেয়ে দীর্ঘসময় ক্ষমতায় থাকা ব্যক্তি হবেন তিনি। সম্ভাব্য জোট সঙ্গীদের সঙ্গে সরকার গঠনের আলোচনা তিনি শুরু করে দিয়েছেন বলে জানিয়েছেন।
২০০৯ সাল থেকে ক্ষমতায় রয়েছেন নেতানিয়াহু। এবারের নির্বাচনকে তার জন্য জনগণের গণভোট হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল। তার বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ রয়েছে।
এর আগে নির্বাচন পরবর্তী দুটি জরিপে নেতানিয়াহুর ডানপন্থী জোট সরকার গঠন করতে পারবে বলে ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে। তবে তৃতীয় আরেকটি জরিপে গান্তজের নেতৃত্বাধীন মধ্যবামপন্থী দলগুলোর সরকার গঠনের ইঙ্গিত দেওয়া হয়েছে।
তবে পাল্টাপাল্টি বিজয় দাবি করেছে প্রধান দুই প্রতিদ্বন্দ্বি জোট। নীল ও সাদা জোটের এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে, ‘আমরা জয় লাভ করেছি। ইসরায়েলের জনগণ তাদের রায় দিয়েছে। এই নির্বাচনে পরিস্কার জয়ী ও পরাজিত রয়েছে।প্রধানমন্ত্রী নেতানিয়াহু টুইটারে লিখেছেন, লিকুদ পার্টির নেতৃত্বাধীন ডানপন্থী জোট তর্কাতীতভাবে জয়ী হয়েছে। আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে ভোট দেওয়ায় ইসরায়েলের জনগণকে ধন্যবাদ। আজ রাতেই আমাদের স্বাভাবিক মিত্রদের সঙ্গে নতুন সরকার গঠনের আলোচনা শুরু করবো।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ