সর্বশেষ :

সাংবাদিকদেরই যেন কোনো ‘বন্ধু’ নেই

এস এম জহিরুল ইসলাম ০২:২৪, ২ আগস্ট ২০২০

সাংবাদিকরা যে প্রতিনিয়ত সমাজের বেসুমার অন্যায়-অনাচারের খবর তুলে ধরে সকলের উপকার করছেন, সাংবাদিকতার কট্টর সমালোচকও তা অস্বীকার করতে পারবেন না৷ অথচ বাংলাদেশে সাংবাদিকদেরই যেন কোনো ‘বন্ধু’ নেই৷
কথায় আছে, ‘গরম ভাতে বিড়াল বেজার, উচিত কথায় বন্ধু বেজার৷’ সাংবাদিকদের কাজই হলো প্রকৃত খবরটা জানানো৷ তো খবরটি যাঁর বিরুদ্ধে, তিনি বেজার হবেন – এটাই স্বাভাবিক৷ কিন্তু ‘বেজার’ ব্যক্তি যত ক্ষমতাশালীই হোক, গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় সাংবাদিকের মর্যাদা এবং অধিকার সুরক্ষার ব্যবস্থা তাঁকে নিরাপদ রাখে৷ সংবাদ মাধ্যম খুব দ্রুত অনেক বেশি বিস্তৃত হয়েছে৷ তা নিয়ে গর্বও করেন অনেকে৷ বিশেষ করে দেশে যে টেলিভিশন চ্যানেল এক থেকে অনেক হয়েছে এবং এর কৃতিত্ব যে শুধু তাঁদেরই প্রাপ্য তা তাঁরা খুব জোর গলায় বলেন৷ কিন্তু সাংবাদিকের বেতন-ভাতা ও অন্যান্য সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার বিষয়ে তাঁরা ‘সময়মতো’ একদম নীরব৷ দেশে এখন সেই সময়ই চলছে৷
বাংলাদেশে সাংবাদিকদের অধিকার আদায়ের লড়াইটা খুব বেশি কঠিন৷ তবে লড়াইটা বেশি কঠিন এ কারণে যে, সাংবাদিকরাই নানা কারণে নিজেদের দাবিটা জোরালোভাবে তুলে ধরতে পারে না৷
প্রধান কারণ অনৈক্য
ঐক্যবদ্ধ হলে যে কোনো পরিবেশ-পরিস্থিতিতেই যৌক্তিক দাবি আদায় সহজ হয়ে যায়৷ কিন্তু বাংলাদেশে সাংবাদিক সমাজ রাজনৈতিক অঙ্গনের মতোই বহুধাবিভক্ত৷ সাগর-রুনি হত্যার বিচার দাবিতে সাংবাদিক সংগঠনগুলো কিছুদিনের জন্য অনৈক্য ভুলেছিল৷ কিন্তু যু্দ্ধাপরাধীদের বিচারের ইস্যুটি নিয়ে দেশের রাজনৈতিক অঙ্গন উত্তপ্ত হয়ে উঠতেই দলীয় লেজুড়বৃত্তির প্রভাবে সাংবাদিক সংগঠনগুলো আবার পরস্পরবিরোধী অবস্থান নেয়৷
অনৈক্যের সুযোগ নেয় মালিক
এ অবস্থা অনেক মিডিয়া মালিকের জন্যও মেঘ না চাইতেই বৃষ্টির মতো৷ অধিকার আদায়ের প্রশ্নে স্বাভাবিক অবস্থায় সব ক্ষেত্রে কর্মী আর মালিক মুখোমুখি অবস্থান নিলেও, এখানে চিত্রটা ভিন্ন৷ অধিকাংশ মালিকপক্ষই সার্বিক অবস্থার সর্বোচ্চ সুবিধাভোগী এবং কর্মীদের সুযোগ-সুবিধা নিশ্চিত করার প্রশ্নে প্রায় নীরব, নিষ্ক্রিয়৷
সাংবাদিক সংগঠনগুলোর প্রতি অনাস্থা
সাংবাদিকদের অনেক সংগঠন৷ তবে কোনো সংগঠনই প্রকৃত অর্থে সাংবাদিকদের আস্থা অর্জন করতে পারেনি৷ নেতারা সব সময় দলীয় এবং ব্যক্তি স্বার্থের ঊর্ধে উঠে কাজ করলে এতটা অনাস্থা বা আস্থাহীনতা তৈরি হতো না৷ সংগঠনগুলো আস্থাশীল হলে অধিকার আদায়ের প্রতিটি আন্দোলনে সর্বস্তরের সংবাদকর্মীকে অনেক বেশি সক্রিয় দেখা যেত৷
‘দুর্বলতা‘
গুরুত্ব অনুযায়ী সংবাদ পরিবেশন সাংবাদিকতার প্রাথমিক শর্তগুলোর অন্যতম৷ অথচ সাংবাদিকদের দুরবস্থার চিত্র তুলে ধরা এবং অধিকার আদায়ের আন্দোলন-কর্মসূচির সংবাদ পরিবেশনের বিষয়টির দিকে দৃষ্টি দিলেই সাংবাদিকতায় অধুনা যোগ হওয়া একটি দুর্বলতা সম্পর্কে পরিষ্কার ধারণা পাওয়া যায়৷ আর সব খবরের মতো সাংবাদিক বা সাংবাদিক সংগঠনগুলোর খবরও সংবাদমাধ্যমে সবসময় উপযুক্ত গুরুত্ব পায় না৷ ‘ফলোআপ’ বিষয়টি সাংবাদিকতায় বিলুপ্ত প্রায়৷ সাংবাদিকরাও এখন সাংবাদিকতার এই ‘দুর্বলতার’ শিকার৷
আক্ষেপ
এমনিতে দেশের প্রতিটি ক্ষেত্রের মতো সাংবাদিকতা এবং সংবাদমাধ্যমেরও সমালোচনা আছে৷ অস্বাভাবিক অল্প সময়ে চোখে পড়ার মতো বিস্তার লাভ করা এই মাধ্যমের দুর্বলতাও অনেক৷ অনেক ক্ষেত্রে পুঁজি বিনিয়োগকারীর পরিচয় এবং উদ্দেশ্য, সংবাদ মাধ্যমের পরিসর অনুপাতে প্রশিক্ষিত বা যোগ্য সংবাদকর্মীর অভাব, সংবাদ মাধ্যমের সার্বিক বিশৃঙ্খলাসহ অনেক বিষয়ই উঠে আসে সমালোচনায়৷ বলা বাহুল্য, এ সব সমালোচনাযোগ্য কোনো বিষয়ের জন্যই সাংবাদিক সমাজকে এককভাবে দায়ী করা যাবে না৷ কোনোক্ষেত্রেই পুঁজি বিনিয়োগকারী এবং সরকার তাদের দায় এড়াতে পারে না৷
লেখক- এসএম জহিরুল ইসলাম
সাধারণ সম্পাদক
মিরপুর প্রেস ক্লাব।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ