সর্বশেষ :

১৭০টি দেশের সঙ্গে কাজ করছে গ্লোবাল এন্টারপ্রেনার নেটওয়ার্ক

নিউজবক্সবিডি ১২:২১, ৮ মার্চ ২০১৯

তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, আমাদের স্টার্ট-আপদের অনেক দুর্দান্ত আইডিয়া আছে, আমরা সেই আইডিয়াগুলো কাজ লাগাতে চাই। অন্যান্য দেশের স্টার্ট-আপদের সঙ্গে যুগপৎ কাজ করতে পারলে আমাদের দেশের স্টার্ট-আপরা নলেজ শেয়ার করে আইটি বিজনেসের বৈশ্বিক গতিধারা সম্পর্কে জানতে পারবে।
বৃহস্পতিবার আগারগাঁওয়ের আইসিটি টাওয়ারে আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।
এ সময় উপস্থিত ছিলেন যুক্তরাষ্ট্রভিত্তিক গ্লোবাল এন্টারপ্রেনার নেটওয়ার্কের এক্সিকিউটিভ ডাইরেক্টর মিজ সুসান আমাল, বাংলাদেশ হাইটেক পার্ক কর্তৃপক্ষের ব্যবস্থাপনা পরিচালক হোসনে আরা বেগম ও আইসিটি বিভাগের বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মকর্তা এবং দেশীয় স্টার্ট-আপরা।
পলক বলেন, আন্তর্জাতিক প্ল্যাটফর্মে স্টার্ট-আপদের প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পথে বিভিন্ন চ্যালেঞ্জ, বিভিন্ন মার্কেট প্লেসে কাজ করার ক্ষেত্রে বাধা থাকলেও বিদেশি বিনিয়োগের এটি একটি মাধ্যম। তিনি বলেন, আমরা দেশের স্টার্ট-আপদের বিনাভাড়ায় স্পেস বরাদ্দ দিচ্ছি। বিভিন্ন প্রকল্পের মাধ্যমে প্রশিক্ষণ প্রদানসহ তাদেরকে বিভিন্নভাবে সহায়তা করা হচ্ছে। বিশ্ব বাজারে দেশীয় স্টার্ট-আপদের জন্য একটা প্ল্যাটফর্ম তৈরি করা জরুরি বলে তিনি জানান।
মিস সুসান আমাল বলেন, ‘মেন্টরিং এবং সঠিক গাইডেন্সের অভাবে ৮০ ভাগ স্টার্ট-আপ দাঁড়াতে পারে না। সঠিক দিক-নির্দেশনা পেলে এই স্টার্ট-আপদের মাধ্যমেই অনেক বড় বড় কোম্পানি প্রতিষ্ঠা করা সম্ভব।’

এ সময় স্টার্ট-আপদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘সফলতা তোমাদেরই হাতে এসে ধরা দেবে, এজন্য তোমাদের সিলিকন ভ্যালিতে যাওয়ার প্রয়োজন নেই।’
উল্লেখ্য, যখন কোনো একটি কোম্পানি বাজারে নতুন কোনো সার্ভিস বা সেবা কিংবা নতুন কোনো প্রোডাক্ট নিয়ে ব্যবসা শুরু করে তখন তাকে স্টার্ট-আপ বলা হয়। গ্লোবাল এন্টারপ্রেনার নেটওয়ার্ক বিশ্বের প্রায় ১৭০টি দেশের সঙ্গে কাজ করছে।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ