যুবরাজ সিং-এর ক্রিকেট থেকে অবসরের

ক্রীড়াবক্স ০৪:৪০, ১০ জুন ২০১৯

ভারতীয় জাতীয় দলের অলরাউন্ডার যুবরাজ সিং সব ধরনের ক্রিকেট থেকে অবসরের ঘোষণা দিয়েছেন। ভারতের মুম্বাইয়ে প্রেস ব্রিফিংয়ের মাধ্যমে সোমবার নিজের অবসরের কথা নিশ্চিত করেন ২০১১ সালের বিশ্বকাপে টুর্নামেন্ট সেরা হওয়া এই ক্রিকেটার।
অবসরের আগে দেশের হয়ে ৪০টি টেস্ট, ৩০৪টি ওয়ানডে এবং ৫৮টি টি-টোয়েন্টি খেলেছেন এই অলরাউন্ডার। ৩৭ বছর বয়সী এই ক্রিকেটার ২০১৭ সালে সর্বশেষ ভারতের হয়ে মাঠে নেমেছিলেন উইন্ডিজদের বিপক্ষে।
২০১১ সালের বিশ্বকাপে ভারতকে তাদের দ্বিতীয় শিরোপা এনে দেয়ার পেছনে বড় অবদান ছিল যুবরাজের। সেই আসরে দেশের হয়ে ১৫ উইকেট নেয়ার পাশাপাশি ৯ ম্যাচে ৩৬২ রান করেছিলেন এই অলরাউন্ডার। যে সুবাদে টুর্নামেন্ট সেরা হয়েছিলেন তিনি।
বিশ্বকাপের পর ক্যান্সারে আক্রান্ত হওয়ার কারণে ক্রিকেট থেকে দীর্ঘ সময় দূরে ছিলেন যুবরাজ। ক্যান্সারকে হার মানিয়ে মাঠে ফিরলেও ভারতীয় দলে জায়গাটা এরপর আর পুরোপুরি ভাবে পুনরুদ্ধার করতে পারেননি তিনি।
বেশ কয়েকবার দলে সুযোগ পেয়েও সেরা পারফরম করতে না পারায় দল থেকে বাদ পড়তে হয়ে তাকে। ২০১৭ সালের চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতেও ভারতীয় দলের সদস্য ছিলেন বাঁহাতি এই অলরাউন্ডার।
২০০০ সালে ভারতের জার্সিতে ওয়ানডে অভিষেক হয়েছিল যুবরাজের। দেশের হয়ে এরপর নানান কীর্তি গড়েছেন তিনি। ২০০৭ সালে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপে ইংল্যান্ডের পেসার স্টুয়ার্ট ব্রডকে ওভারে ছয় ছক্কা হাঁকিয়েছিলেন তিনি। এছাড়া এই ফরম্যাটে ১২ বলে ফিফটি হাঁকানোর কীর্তি রয়েছে তাঁর। ২০০২ সালে লর্ডসে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ভারতের ঐতিহাসিক জয়ের পেছনে বড় অবদান ছিল যুবরাজের।
ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লীগে প্রায় সব ফ্র্যাঞ্চাইজির হয়েই মাঠে নামার অভিজ্ঞতা রয়েছে যুবরাজের। গেল আসরে মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে মাঠে নামলেও আশানুরূপ পারফর্ম না করায় বাদ পড়তে হয় তাঁকে।
২০১৬ সালে সানরাইজার্স হায়দ্রাবাদ এবং চলতি বছর মুম্বাই ইন্ডিয়ান্সের হয়ে আইপিএল শিরোপা জিতেছেন এই অলরাউন্ডার। এছাড়া এশিয়া একাদশ, বিশ্ব একাদশের হয়েও দেশকে প্রতিনিধিত্ব করেছেন তিনি।

পাঠকের মন্তব্য

লাইভ

টপ